ডাকসু নির্বাচনে ‘ছাত্রলীগের বিদ্রোহীদের’ আলাদা প্যানেল ঘোষণা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে প্যানেল ঘোষণা করেছে ছাত্রলীগের বিদ্রোহী একটি অংশ। তারা বলছেন, ছাত্রলীগের প্যানেলে তাদের যোগ্যতার মূল্যায়ন হয়নি। তাই তারা নতুন প্যানেল ঘোষণা করেছেন। তবে ‘বিদ্রোহী’ এই অংশটি এখনো ডাকসুর ২৫টি পদে নির্বাচনের জন্য পূর্ণাঙ্গ প্যানেল দিতে পারেনি।

সোমবার বেলা ১১টার দিকে মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনে এই প্যানেল ঘোষণা করা হয়।

ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে গিয়ে প্যানেল ঘোষণা করলেও ‘বিদ্রোহী’ হিসেবে নিজেদের মানতে নারাজ তারা। বলছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী হিসেবে মনে করছি আমাদেরও নির্বাচনের অধিকার রয়েছে। তাই আমরা প্যানেল ঘোষণা করছি। আমরাও নির্বাচন করবো। আশা করছি ছাত্রলীগ আমাদের ফুল দিয়ে বরণ করবে।

ঘোষিত প্যানেলে ভিপি (সহ-সভাপতি) পদে প্রার্থী করা হয়েছে সোহান খানকে। তিনি ছাত্রলীগের সদ্যবিদায়ী কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি। জিএস (সাধারণ সম্পাদক) পদে প্রার্থী করা হয়েছে আমিনুল ইসলাম বুলবুলকে। তিনি সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক।

এছাড়া, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক পদে প্রার্থী হচ্ছেন সদ্যবিদায়ী কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের উপ মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক আল মামুন।

রবিবার দুপুরে মধুর ক্যান্টিনেই সংবাদ সম্মেলন করে আনুষ্ঠানিকভাবে প্যানেল ঘোষণা করে ছাত্রলীগ। প্যানেলে ডাকসু ভিপি (সহ-সভাপতি) পদে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও জিএস (সাধারণ সম্পাদক) পদে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ও সহ-সাধারণ সম্পাদক (এজিএস) পদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনকে প্রার্থী করা হয়েছে।

আমিনুন ইসলাম বুলবুল সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘আমাদের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ছাত্রদলকে ফুল দিয়ে মধুতে স্বাগত জানান। আমাদের প্রশ্ন যারা বঙ্গবন্ধুকে স্বীকার করে না তাদের ফুল দিয়ে কীভাবে তিনি নিজেকে মুজিব আদর্শের সৈনিক দাবি করতে পারেন।’

যারা গত নয় মাসে ছাত্রলীগের কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে পারেননি তারা ডাকসুতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের কী দেবেন- প্রশ্ন আমিনুল ইসলাম বুলবুলের।

আল মামুন দাবি করেন, ছাত্রলীগের প্যানেলে যোগ্যদের মূল্যায়ন হয়নি। তাই তাদের এই সিদ্ধান্ত।

শেয়ার করুন