উইলিয়ামসনের ডাবল সেঞ্চুরি, বড় লিড কিউইদের

অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের ডাবল সেঞ্চুরির পর ইনিংস ঘোষণা করেছে নিউ জিল্যান্ড, আর এতে প্রথম ইনিংসেই কিউইদের লিড দাঁড়িয়েছে ৪৮১ রানের।

এই টেস্ট নিউ জিল্যান্ডের জন্যে রেকর্ডেই, কারণ এই প্রথম তারা সাত শতাধিক রান পেরিয়েছে। হ্যামিল্টন টেস্টের তৃতীয় দিনের দ্বিতীয় সেশনে গিয়ে ইনিংস ঘোষণার সময় কিউইদের রান ৬ উইকেটে ৭১৫।

নাইটওয়াচম্যান নিল ওয়েগনারকে নিয়ে দিন শুরু করেছিলেন উইলিয়ামসন। এই জুটিতে আসে ৬০ রান। জুটির ৩৫ বলে ৪৭ রানই ওয়েগনারের।

টেস্টে ইবাদত হোসেনের প্রথম শিকার হয়ে ওয়েগনার ফেরার পর বিজে ওয়েটলিংকে নিয়ে উইলিয়ামসন গড়েন ৯৬ রানের আরেক জুটি। বাংলাদেশের হতাশা বাড়িয়ে প্রভাব বিস্তার করে রাখেন তারা। মিরাজের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ওয়েটলিং ফেরার পর আসেন কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। এসেই তিনি খেলছেন ৫৩ বলে ৭৬ রানের ঝড়ো ইনিংস। বাংলাদেশের বোলারদের ইচ্ছেমতো পিটিয়ে রান বাড়িয়ে নিয়েছেন দলের।

গ্র্যান্ডহোম যখন আসেন অধিনায়ক উইলিয়ামসন ততক্ষণে ছাড়িয়ে গেছেন দেড়শ’র গন্ডি। ১১০ রানের জুটির পর দলের রান ছাড়িয়ে যায় সাতশ’, উইলিয়ামসন পেয়ে যান ডাবল সেঞ্চুরি। লিড ততক্ষণে পাঁচশ ছুঁইছুঁই। ইনিংস ঘোষণা করেন তিনি।

তার খানিক আগেই ইতিহাস গড়ে কিউইরা। শাদা পোশাকে দীর্ঘ পথচলায় টেস্টে এরআগে কখনই সাতশ’ রান ছিল না নিউজিল্যান্ডের। আগের সর্বোচ্চ ছিল ২০১৪ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৬৯০ রান। ইতিহাস গড়েছেন উইলিয়ামসনও। নিউজিল্যান্ডের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ২০টি সেঞ্চুরি হয়ে গেছে তার, আর এই ম্যাচের মাধ্যমেও যোগ দিয়েছেন ছয় হাজারি ক্লাবে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ২৩৪
নিউ জিল্যান্ড ১ম ইনিংস: ১৬৩ ওভারে ৭১৫/৬ (আগের দিন ৪৫১/৪) (রাভাল ১৩২, ল্যাথাম ১৬১, উইলিয়ামসন ২০০* টেইলর ৪, নিকোলাস ৫৩, ওয়েগনার ৪৭, ওয়েটলিং ৩১, গ্র্যান্ডহোম ৭৬; জায়েদ, ০/১০৩, ইবাদত ১/১০৭, খালেদ ০/১৪৯, সৌম্য ২/৬৮, মিরাজ ২/২৪৬, মাহমুদউল্লাহ ১/৩, মুমিনুল ০/৩২)

শেয়ার করুন