নাম থেকে ‘আওয়ামী’ শব্দ বাদ দিচ্ছে ওলামা লীগ

নামের প্রথমাংশ থেকে ‘আওয়ামী’ শব্দ বাদ দিচ্ছে আওয়ামী ওলামা লীগ। শুধু ‘ওলামা লীগ’ নামে নতুন করে আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছে সংগঠনটি। আগামী রোজার মাসের আগেই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ ঘোষণা দেওয়া হবে।

‘আওয়ামী ওলামা লীগ’ এর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা শেখ আবু হাসান শরিয়তপুরী জানান, ‘তারা ৯০ এর দশক থেকেই আওয়ামী লীগের সঙ্গে রাজনীতি করে আসছেন। আন্দোলন-সংগ্রামে ছিলেন। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে একাধিকবার আওয়ামী লীগ প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সম্পর্ক অস্বীকার করেছে। এমনকি আওয়ামী লীগের এ প্রজন্মের অনেক নেতা ‘আওয়ামী ওলামা লীগ’ নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেছেন। তাই তারা ‘আওয়ামী’ শব্দ বাদ দিয়ে নতুন নামে নতুনভাবে কাজ করতে চান।

প্রসঙ্গত, গত জানুয়ারিতে ‘বিপিএল’ নিষিদ্ধসহ বেশ কিছু দাবিতে মানববন্ধন করে ‘আওয়ামী ওলামা লীগ’। এর আগে পহেলা বৈশাখ পালন বন্ধসহ বিভিন্ন ধরনের হাস্যকর দাবি জানানো হয় সংগঠনটির পক্ষ থেকে। এ কারণে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদসহ অন্য নেতারা আওয়ামী লীগের সঙ্গে এ সংগঠনটির কোনও সম্পর্ক নেই বলে জানান।

সর্বশেষ এ বছরের ২১ জানুয়ারি একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে আওয়ামী লীগের পক্ষে বলা হয়, ‘আওয়ামী ওলামা লীগ’ নামে আওয়ামী লীগের কোনও সহযোগী সংগঠন নেই। এমনকি ‘আওয়ামী ওলামা লীগ’ নামে এ ধরনের কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা সম্পূর্ণ অনৈতিক ও বেআইনি। আওয়ামী ওলামা লীগের নাম ব্যবহার করে আওয়ামী লীগের নীতিবিরোধী কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণেরও আহ্বান জানানো হয়।

যদিও পরদিন ২২ জানুয়ারি ‘আওয়ামী ওলামা লীগ’ এর সভাপতি মাওলানা মুহম্মদ আখতার হুসাইন বুখারী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের মৌখিকভাবে সংগঠন পরিচালনার দায়িত্ব দিয়েছেন। আমরা প্রধানমন্ত্রীর সামনে মৌখিকভাবে কথা বলতে পারি। তবে, উনারা যদি আমাদের অস্বীকার করেন, তাহলে প্রধানমন্ত্রীর সামনে আমাদের নিয়ে বসাক, তখন উনি যদি বলেন যে, ‘আপনারা ওলামা লীগ না’, তখন আমরা এই সংগঠন করবো না।’’

তবে, সে অবস্থান থেকে সরে এসেছেন ‘আওয়ামী ওলামা লীগ’ এর নেতারা। তারা এখন স্বতন্ত্রভাবে কাজ করতে চান বলে মাওলানা মুহম্মদ আখতার হুসাইন বুখারী জানান। আর সে লক্ষ্যেই নতুনভাবে সংগঠনকে গড়ে তোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

সংগঠনটির একটি সূত্র জানায়, নতুনভাবে আত্মপ্রকাশের জন্য এরইমধ্যে গঠনতন্ত্র তৈরির কাজ চলছে। এতে ‘আওয়ামী ওলামা লীগ’ এর নেতারাই থাকবেন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে জঙ্গিবাদ-মাদকমুক্ত-সন্ত্রাসমুক্ত দেশ গঠনে কাজ করার অঙ্গীকার থাকবে গঠনতন্ত্রে। পাশপাশি ইসলামবিরোধী যে কোনও পদক্ষেপ প্রতিরোধ করতে তারা কাজ করবেন বলে জানান ‘আওয়ামী ওলামা লীগ’ এর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা শেখ আবু হাসান শরিয়তপুরী।

সংগঠনটির সভাপতি মাওলানা মুহম্মদ আখতার হুসাইন বুখারী আক্ষেপ করে জানান, ‘তারা অত্যন্ত দুঃসময়ে আওয়ামী লীগের সঙ্গে রাজনীতি করেছেন। ২০০৬ সালে বিএনপি-জামায়াত সরকারবিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন। যেদিন দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিমকে পুলিশ লাঠিপেটা করে, সেদিন তারা সেখানে ছিলেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ নেতারা যেহেতু সেসব মনে না রেখে সম্পর্ক অস্বীকার করছেন, তাই তারা তাদের রাজনীতি বাঁচিয়ে রাখতে নতুন নামে সংগঠন করতে যাচ্ছেন।

সূত্র: বাংলা ট্রিবিউন

শেয়ার করুন