সরকারি কর্মকর্তাদের কী বলে সম্বোধন করবেন জানতে চেয়ে আবেদন

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্বোধনে কোনো আইন বা বিধি রয়েছে কি না তা জানতে চেয়ে তথ্য অধিকার আইনে আবেদন করেছেন সুনামগঞ্জের এক উন্নয়নকর্মী।

গত ২০ মে দুপুরে তথ্য অধিকার বিধিমালার বিধি-৩ এর নির্ধারিত ফরম ‘ক’ পূরণ করে এই তথ্য জানতে চান তিনি।

এমন আবেদনকারীর নাম সালেহীন চৌধুরী শুভ। তিনি সুনামগঞ্জ শহরের ষোলঘর ওয়াপদা রোডের বাসিন্দা।

আবেদনে তিনি জানতে চেয়েছেন, সুনামগঞ্জ কালেক্টরেটে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নাগরিকরা কী বলে সম্বোধন করবেন?

সালেহীন চৌধুরী বলেন, সম্বোধন নিয়ে দেশের সাধারণ জনগণ প্রায়ই সরকারি দফতরগুলোতে দুর্ব্যবহারের শিকার হন। ‘স্যার’ সম্বোধন না করলে বিরক্তি ভাব দেখান কর্মকর্তারা। তারা বুঝতে চান না যে, তারা রাষ্ট্রের কর্মচারী।

এ বিষয়ে অনেক সাধারণ মানুষেরও তেমন একটা জানা নেই বলে মনে করেন সালেহীন।

সে জন্য জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে তিনি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্বোধনে কোনো আইন বা বিধি আছে কি না তা তথ্য অধিকার আইনে জানতে চেয়েছেন।

আবেদনটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখায় (ডকেটে) জমা দিয়ে রিসিভড কপিও এনেছেন বলে জানান সালেহীন চৌধুরী।

ইতিমধ্যে সালেহীন তার এই আবেদনের কপি নিজের ফেসবুক ওয়ালে আপলোড করেছেন।

তার এমন আবেদনকে দারুন একটি কাজ বলে মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ। অনেকেই তথ্যটি দেশের সবারই জানা প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন।

আফরোজ রায়হান নামের একজন লিখেছেন, আধুনিক, সময়োপযোগী, বুদ্ধিদীপ্ত, সাহসী উদ্যোগ। অসম মানবিক বাস্তবতার চোখে আঙ্গুল দিয়ে ভবিষ্যতের সুসম পথ দেখাবে আশা করি।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের তথ্য ও অভিযোগ শাখার একজন কর্মচারী জানান, ডকেটে কেউ তথ্য অধিকার আইনে আবেদন করলে তা স্ক্যান করে তাৎক্ষণিক জেলা প্রশাসকের ইমেইলে পাঠানো হয়। তিনি এসব আবেদন দিনের কার্যক্রম শেষে রাতে দেখেন। বেশি ব্যস্ত থাকলে পরদিন সকালে দেখেন।

প্রসঙ্গত কয়েক দিন আগে ‘দিদি’ ডাকায় এক ব্যবসায়ীর মাছের থালায় লাথি দেওয়ার অভিযোগ ওঠে ফেঞ্চুগঞ্জের সহকারী কমিশনার (ভূমি) সঞ্চিতা কর্মকারের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে আলোচনার মধ্যে সরকারী কর্মকর্তাদের সম্বোধন নিয়ে এই আবেদন করেন শুভ।

শেয়ার করুন